বিধায়কের উদ্যোগে প্রস্তুতি সভায় নেই জাফিকুলই, যদিও মুখ্যমন্ত্রীর সভায় থাকার আশ্বাস তাঁর

নিজস্ব সংবাদদাতা, বহরমপুরঃ ডোমকলে মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তুতি বৈঠকেও অনুপস্থিত বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম। তবে কি মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফরেও তিনি থাকবেন না? যদিও বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের উদ্যোগেই এই সভা হচ্ছে বলে লেখা রয়েছে। ডোমকলের ব্লক সভাপতি হাফিজুল ইসলাম বলেন, “বিধায়কের উদ্যোগেই এই সভা হয়েছে।” সেখানে অবশ্য উনি ছিলেন না বলেই জানিয়েছেন ব্লক সভাপতি।

দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের সভায় তিনি উপস্থিত ছিলেন না। যা নিয়ে হইচই পড়ে গিয়েছিল রাজ্য জুড়ে। প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল সভায় ডোমকলের বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম কি স্বেচ্ছায় এড়িয়ে গেলেন কালীঘাটের সভা? না কি দলই তাকে প্রকাশ্যে আসতে বারণ করেছে। যদিও শেষ পর্যন্ত মুখ খোলেন নি না জাফিকুল না তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। বুধবার মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফর উপলক্ষে শনিবার জেলা সংগঠনের প্রস্তুতি বৈঠকেও গরহাজির ছিলেন জাফিকুল।

যদিও মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফরে উপস্থিত থাকবেন বলে সোমবার জানিয়েছেন বিধায়ক। নিজের বিধানসভা এলাকা থেকে প্রায় হাজার ছয়েক লোক বহরমপুর স্টেডিয়ামে যাবেন বলেও এদিন দাবি করেন জাফিকুল। তিনি বলেন, “আমি ডেভিড দা (অপূর্ব সরকার)কে কথা দিয়েছি আমার এলাকা থেকে ছ’হাজার কর্মী সমর্থক স্টেডিয়ামে যাবেন।” তিনি থাকবেন কি না এই প্রশ্নে জাফিকুল জানিয়েছেন তিনিও থাকবেন। তবে প্রস্তুতি সভায় তিনি কেন ছিলেন না তার অবশ্য কোনও উত্তর মেলেনি বিধায়কের তরফে।

এই ব্যানারেই বৈঠক হয় ডোমকলে। নিজস্ব চিত্র

যদিও ডোমকলে দলের কার্যালয়ের ওপরে ব্যবসায়ী সমিতির হল ঘরে এই প্রস্তুতি বৈঠক হয়। সেখানে ব্লকের অনেকেই উপস্থিত থাকলেও গরহাজির ছিলেন জাফিকুল। হাফিজুল বলেন, “বিধায়কের এলাকা থেকে আমরা শো তিনেক ছোট গাড়ি আর বাস মিলিয়ে হাজার পাঁচেক লোক নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর সভাস্থলে যাব।”

ফেলে আসা বছরের নভেম্বরে সিবিআই আধিকারিকরা শিক্ষা ব্যবসায়ী জাফিকুলের বাড়িতে তদন্তে এসেছিলেন। তারপর থেকেই দল ও এলাকায় সরকারি কিংবা দলের কর্মসূচিতে জাফিকুলের সক্রিয় অংশগ্রহণ নজরে পরেনি বলেই দাবি এলাকাবাসীর।