Yusuf Pathan পাঁচবারের সাংসদ অধীর বনাম অলরাউন্ডার ইউসুফ , কবে প্রচারে

Yusuf Pathan তিনিও এলেন রাজনীতিতে । ব্যাট হাতে দেশের হয়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন এই ডানহাতি ব্যাটস ম্যান। তবে এবারে তৃণমূলের হাত ধরে রাজনীতির মাঠে নামলেন ইউসুফ পাঠান। রবিবার ব্রিগেডের মঞ্চ থেকে প্রকাশিত হয় তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা। সেখানে ইউসুফ পাঠানের নাম ঘোষণা করেন তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড অভিষেক ব্যানার্জি (Abhishek Banerjee) ।

বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হচ্ছেন ইউসুফ। এই কেন্দ্র অধীরগড় নামে পরিচিত। গত পাঁচটি লোকসভা ভোটে এই কেন্দ্র থেকে জিতে সাংসদ হয়েছেন বহরমপুরের ভূমিপুত্র তথা প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী (Adhir Ranjan Chowdhury) । তবে এবারে অধীরের বিপরীতে ইউসুফ পাঠানকে প্রার্থী করল তৃণমূল কংগ্রেস।

আরও পড়ুনঃ Adhir Chowdhury: এমপি ল্যাডের টাকা খরচ করতে পারি না ! অধীরের দাবিতে পাল্টা তৃণমূলের

২০১১-এর বিশ্বকাপে ৩৭ বলে সেঞ্চুরি রান করে নজির গড়েছিলেন এই ইউসুফ। পরে আইপিএলেও কলকাতা নাইট রাইডার্স দলের হয়ে খেলেছেন। সামলেছেন অধিনায়কের দায়িত্বও। তবে এবারে বেগুনি জার্সি ছেড়ে ঘাসফুলের আঙিনায় এলেন গুজরাটের বরোদার ভূমিপুত্র ইউসুফ পাঠান। তৃণমূলের সর্ব ভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেকের ঘনিষ্ঠ এই ক্রিকেটার, বলে রাজনৈতিক সূত্রের খবর।

বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্র, যা কংগ্রেসের গড় নামেই পরিচিত। বিধানসভা ভোটে এখানে পদ্ম ফুটেছে। বিধায়ক হয়েছেন বিজেপির সুব্রত মৈত্র। লোকসভা ভোটের দিন ঘোষণার আগে বিজেপি এই কেন্দ্রে প্রার্থী ঘোষণা করেছেন জেলার নামজাদা চিকিৎসক নির্মল সাহাকে। রবিবার প্রার্থী দিলও তৃণমূলও। তবে ভোট নিয়ে নেই চাপ। তৃণমূলের প্রার্থী ঘোষণার পরে আত্মবিশ্বাসী অধীর জানান, “ খেলা তো সোজা হয়ে গেল। আমি জানতাম এমনটাই হবে। । মুখ্যমন্ত্রীর ইউসুফ পাঠানকে ভোটের ময়দানে আনতে চাইলে তাঁকে গুজরাট থেকে প্রার্থী করতে পারতেন। সেই নিয়ে ইন্ডিয়া জোটের সাথে কথা বলতে পারতেন। কিন্তু তা না করে এমন একটা জায়গা থেকে উনাকে প্রার্থী করলেন যে জায়গা উনি চেনেনই না। এখানকার মানুষের ভাষাও জানেন না। এভাবে রাজনীতির ময়দানে ডেকে এনে তাঁকে অসম্মান করা হল। নিদেনপক্ষে তাঁকে রাজ্যসভার প্রার্থী করতে পারতেন ”।

 

এর আগেও ২০১৪ সালে এই কেন্দ্র থেকে গায়ক ইন্দ্রনীল সেনকে প্রার্থী করেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। সেবারেও প্রায় সাড়ে তিন লক্ষের বেশি ভোটে ইন্দ্রনীলকে হারান অধীর। ২০১৯ সালে তৃণমূল প্রার্থী করেছিল কান্দির ভূমিপুত্র অপূর্ব সরকারকে। সেবারও জেতেন অধীরই। ১৯৯৯ সালের পর থেকে টানা ২৫ বছর ধরে এই কেন্দ্রে জিতেছেন অধীর। তবে বহরমপুরে অধীরের বিপরীতে তৃণমূলের এই তারকা প্রার্থী ভোটের আগে কী স্ট্র্যাটেজী নেয় সেদিকেই তাকিয়ে শহরের মানুষ।

তৃণমূল সূত্রে খবর, দ্রুতই বহরমপুরে এসে প্রচারে নামবেন ক্রিকেটার প্রার্থী। মুর্শিদাবাদ এবং জঙ্গিপুর কেন্দ্র নিয়ে যদিও কোন পরীক্ষা করে নি তৃণমূল। জঙ্গিপুরে প্রার্থী করা হয়েছে খলিলুর রহমানকে, মুর্শিদাবাদ কেন্দ্র থেকে প্রার্থী করা হয়েছে আবু তাহের খানকে। দুজনেই ২০১৮ সালের লোকসভা নির্বাচনে এই দুই কেন্দ্র থেকেই জিতেছিলেন।