নতুন আইন বাতিলের দাবি ট্রাক চালকদের, সহমত অধীরও

নিজস্ব সংবাদদাতা, বহরমপুরঃ সংশোধিত ভারতীয় ন্যায় সংহিতা হিট অ্যান্ড রান আইনের বিরুদ্ধে সারা দেশের সঙ্গে মুর্শিদাবাদেও শামিল ট্রাক চালকেরা। এর আগে আইপিসির বিভিন্ন ধারায় হিট অ্যান্ড রান মামলায় দোষিদের জন্য বরাদ্দ ছিল দু’বছরের সাজা। দিন পনের আগে ধ্বনিভোটে কেন্দ্র সরকার সেই আইন বদলেছে। নতুন ভারতীয় ন্যায় সংহিতার ১০৪(১) ও ১০৪(২) ধারা অনুযায়ী দু-বছরের পরিবর্তে দশ বছর করা হয়েছে। বাড়ানো হয়েছে জরিমানার পরিমাণও।

সেই নয়া আইনের বিরোধীতায় দেশ জুড়ে বছরের শুরুতেই তিনদিনের ট্রাক ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে অল ড্রাইভার ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ইন্ডিয়া। নয়া সংশোধিত ভারতীয় ন্যায় সংহিতা হিট অ্যান্ড রান আইনের বিরোধীতায় এদিন নবগ্রামেও পথে নেমে বিক্ষোভে সামিল হন ট্রাক চালকেরা। নবগ্রামের পলসন্ডা মোড় সংলগ্ন এলাকায় জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান ট্রাক চালকেরা। বহরমপুরে নয়া বাইপাসেও এদিন রাস্তা অবরোধ করেন ট্রাক চালকেরা।

মঙ্গলবার ট্রাক চালক সংগঠনের মুর্শিদাবাদ জেলা শাখার পক্ষ থেকে জেলাশাসককে ডেপুটেশনও দেওয়া হয়। সংশোধিত হিট অ্যান্ড রান আইন বাতিল সহ মোট ২৯ দফা দাবিতে এদিন দেওয়া হয় ডেপুটেশন। আইন বাতিল না হলে আগামী দিনে বৃহত্তর আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দেন ট্রাক চালকেরা। অল ড্রাইভার ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ইন্ডিয়ার জেলা সভাপতি রণজয় কুমার দাস বলেন, ” আমরা জেলা শাসককে ডেপুটেশন দিয়েছি। উনি আমাদের কাছে সময় চেয়েছেন।” ড্রাইভারস ডে পালন করার দাবিও তোলেন তাঁরা।

টায়ার পুড়িয়ে রাস্তা অবরোধ ট্রাক চালকদের বহরমপুর বাইপাসে। ছবিঃ শুভরাজ সরকার

 

ট্রাক চালক সাদেক আলী বলেন, ” দুর্ঘটনায় আমাদের সব সময় হাতে থাকে না। আর সেই দুর্ঘটনা ঘটলে আমাদের সাজা পেতে হবে। কোনও সরকার আমাদের পাশে দাঁড়ায় না। এই কালো আইন বাতিলের দাবি তুলছি। যতদিন না এই আইন বাতিল হচ্ছে ততদিন আমরা এই ধর্মঘট তুলছি না।”

এই আন্দোলনের সমর্থনে ট্রাক চালকদের পাশে দাঁড়িয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সাংসদ অধীর রঞ্জন চৌধুরী। নয়া কেন্দ্রীয় পরিবহন আইন নিয়ে কেন্দ্রের কড়া সমালোচনা করেছেন বহরমপুরের সাংসদ। তিনি বলেন, ” জোর যার মুলুক তার এই মানসিকতা থেকেই এই আইন পাশ করানো হয়েছে। স্বৈরাচারী ব্যবস্থা চলছে। কোন পরিস্থিতিতে  ট্রাক দুর্ঘটনা ঘটছে তার তদন্ত না করেই সাজা ঘোষণা করা হচ্ছে। নানান জটিলতায় ভরা এই আইন শ্রমিক বিরোধী আইন, জনবিরোধী আইনের আমরা বিরোধীতা করছি। এই আইনের জন্য আগামী দিনে ভুগতে হবে।” এদিন ট্রাক চালকেরা বহরমপুরে কংগ্রেসের জেলা কার্যালয়ে অধীর চৌধুরীর সঙ্গে সাক্ষাত করেন।