সাধারণ জ্বরেও ডেঙ্গির চিকিৎসা। ৩২ জন ডেঙ্গি আক্রান্ত ভর্তি মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে।

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্ক, ১ নভেম্বরঃ রাজ্যে ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হয়ে একের পর এক মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। আবার, চলতি মরসুমে, অর্থাৎ গত জানুয়ারি থেকে এখনও পর্যন্ত যত জন ডেঙ্গিতে আক্রান্ত হয়েছেন, সেই সংখ্যা গত পাঁচ বছরের মোট আক্রান্তের থেকে বেশি! মিটেছে উৎসব তবে কী অবস্থায় মুর্শিদাবাদের ডেঙ্গি পরিস্থিতি। উৎসবের আগে ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণে আনতে একাধিক নির্দেশিকা জারি করেছিল প্রশাসন ও স্বাস্থ্য দপ্তর। পুজো কমিটি গুলিকে মশা বাহিত রোগের হাত থেকে রক্ষা করতে স্বচ্ছতা ও সচেতনতায় জোর দেওয়া হয়। প্রশাসনিক এই পদক্ষেপে ফলও মিলেছে হাতে নাতে বলেই মনে করছে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর।

সূত্রের খবর, স্বাস্থ্য দফতরের এই অভ্যন্তরীণ রিপোর্ট দেখে কপালে ভাঁজ পড়েছে স্বাস্থ্যকর্তাদেরও। তাঁদের আশঙ্কা, যে ভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে, তাতে আগামী দু’মাসের মধ্যে, অর্থাৎ চলতি বছরে আক্রান্তের মোট সংখ্যা লক্ষের ঘরে পৌঁছে যেতে পারে। জানা যাচ্ছে, গত জানুয়ারি থেকে ২৪ অক্টোবর পর্যন্ত রাজ্যে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ৭৬ হাজার ৪৭৫ জন। বছর শেষের দু’মাস আগেই যা ২০২২ সালের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে।

স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে পুজোর আগে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যে সংখক ডেঙ্গি আক্রান্ত রোগী ভর্তি ছিলেন, এখন তা অনেকটাই কমেছে। এই মুহুর্তে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৩২ জন। এর মধ্যে রয়েছে ৪ জন শিশু। সকলেই সুস্থ থাকলেও একজনের অবস্থা আশঙ্কা রয়েছেন। মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রিন্সিপাল ডাঃ অমিত দান জানান, ‘আমাদের কাছে বেশিরভাগ যে সমস্ত রোগী আসেন, তাঁরা বেশিরভাগই বাইরে থেকে রেফার হওয়া। এখানে সরাসরি ভর্তির হার খুব কম। বেশিরভাগ আক্রান্ত রোগী সুস্থ আছেন। এবং খুব তাড়াতাড়ি ছুটিও পেয়ে যাবে। এক জনের অবস্থা একমাত্রই আশঙ্কাজনক। এছাড়াও আমাদের হাসপাতালে যথেষ্ট জায়গা রয়েছে। এবং আমরা সমস্তভাবে প্রস্তুতও।’

মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রিন্সিপাল জানান এই মহুর্তে ডেঙ্গি পরিস্থিত কিছুটা কম। তবে আগামী দিনে উদ্বেগ জনক হলে তাঁর জন্য প্রস্তুত রয়েছেন তাঁরা। জেলাতেও এই ডেঙ্গি পরিস্থিত নিয়ে বেশ উদ্বেগ জনক। সংখ্যার নিরিখে হয়ত খুব কম শুনতে লাগলেও এইটি একটি বড় আকার ধারন করতে পারে যেকোনো মুহূর্তে।