ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় তৃণমূল থেকে সাসপেন্ড মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের সদস্য বাবর আলী সেখ।

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্ক, ৬ নভেম্বরঃ ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় তৃণমূল থেকে সাসপেন্ড মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের সদস্য বাবর আলী সেখ। এবার গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ভরতপুরের ৫৬ নম্বর জেলা পরিষদ আসনে তৃণমূলের টিকিটে জয়ী হন বাবর আলী সেখ। গত শুক্রবার এক মহিলা বাবর আলীর শেখের বিরুদ্ধে কান্দি থানায় ধর্ষনের অভিযোগ দায়ের করেন। মহিলার অভিযোগ ছিল প্রতিবেশী জেলা পরিষদ সদস্য বাবর আলী সেখ প্রাণে মারার হুমকি দিয়ে তাঁকে দীর্ঘদিন ধরে ধর্ষণ করেছে। এই ঘটনায় অস্বস্তিতে পরে জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব।

সোমবার সন্ধ্যায় বহরমপুরে জেলা তৃণমূল কার্যালয়ে সাংবাদিক বৈঠকে জেলা পরিষদ সদস্য বাবর আলী সেখকে অনিদিষ্টকালের জন্য সাসপেন্ডের কথা জানান বহরমপুর মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল সভানেত্রী সাওনি সিংহ রায়। তিনি জানান রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশেই এই সিদ্ধান্ত। ব্লক সভাপতি ও দলীয় নেতৃত্বকে তিনি নির্দেশ দেন অভিযুক্ত জেলা পরিষদ সদস্য যাতে কোন দলীয় কর্মসূচীতে অংশ না নেন।

সাংগঠনিক বহরমপুর মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি শাওনি সিংহ রায় সোমবার প্রেসমিট করে জানান, ‘আমাদের দল সর্বদা আমাদের শেখায় কোন অন্যায় না মানতে এবং না অন্যায় করবে। আমাদের কাছে দুদিন আগেই এই খবরটি আসে যে ৫৬ নং জেপি মেম্বার বাবর আলি শেখ তিনি যে অন্যায় করেছেন। দল সেটিকে কোনভাবেই সমর্থন করেনা। এবং রাজ্যস্তরেও আমরা এই বিষয়টি বলেছি। রাজ্যের নির্দেশে আমরা আজ থেকে অর্থাৎ সোমবার থেকেই দল থেকে তাঁকে সাসপেন্ড করছি।’ জেলা কংগ্রেস মুখপাত্র জয়ন্ত দাস জানান, ‘এরা সব তৃনমূলের ছাগল। এবার তৃনমূলই জানেন একে গলা থেকে কাটবে না পা থেকে। তবে দাবী করছি প্রশাসনিকভাবে কাজ হয় এবং দোষী যেন সাজা পান।”