কৃষ্ণনাথ কলেজের সঙ্গে মাস্টারদার সম্পর্কের অজানা দলিল, মিলছে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলায়

দেবনীল সরকার, বহরমপুর: মাস্টারদা সূর্য সেন, বিপ্লবী এই বঙ্গসন্তানের সঙ্গে মুর্শিদাবাদের যোগ অবিচ্ছেদ্য। জেলার ঐতিহ্যময় কৃষ্ণনাথ কলেজে ছাত্র রাজনীতির হাত ধরেই গড়েছিলেন বিপ্লবের স্বপ্ন। তারপর পরাধীন ভারতবর্ষে চট্টগ্রাম অস্ত্রাগার লুণ্ঠন সহ একাধিক বৈপ্লবিক কার্যকলাপের কথা সকলেরই জানা। কিন্তু অজানাও থাকে অনেক কিছুই। সে রকমই মাস্টারদা সূর্য সেনের সাথে কৃষ্ণনাথ কলেজের সম্পর্কের এক অজানা দলিল হল ‘শহিদ সূর্য সেন ও কৃষ্ণনাথ কলেজ ‘। বইয়ের লেখক – সমাজকর্মী, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক, বহরমপুর সূর্যসেনা পরিবারের অন্যতম প্রবীণ সদস্য নির্মল সরকার। ১৯৮৮ সালে প্রথম প্রকাশ হয় বইটি। তারপরে ৩৬ বছর বাদে আবার নতুন মোড়কে এসেছে বইটি।

সিনেমা, নাটক সময়ের দলিল হলেও বইয়ের মাঝে যে লেখা, সেই লেখা আসলে এক সময়ের উপাখ্যান। লেখার মোড়কে যে গল্প, ঘটনা তা-ই পাঠককে আকৃষ্ট করে সত্যের দিকে। এরকমই অনেক সত্য, কিছু প্রিয় কিছু অপ্রিয়কে মানুষের সামনে হাজির করাই লেখকের কাজ, দায়িত্ব। আজকের সময়ে যেখানে রাজনীতিতে শিরদাঁড়া সোজা মানুষের বড়ই অভাব। সেই সময়ে সূর্য সেন কতটা প্রাসঙ্গিক সেই ভাবনা থেকেই ৩৬ বছর বাদে বইটির পুনঃসংস্করণের কথা ভাবেন লেখক। করেও ফেলেন খুব কম সময়েই।

১৮ই জানুয়ারি সল্টলেক সেন্ট্রাল পার্কে শুরু হয়েছে ৪৭ তম আন্তর্জাতিক কলকাতা বইমেলা। সেই মেলায় সারা রাজ্য তথা দেশ-বিদেশের বইপ্রেমীদের জন্য মিলবে ‘শহিদ সূর্য সেন ও কৃষ্ণনাথ কলেজ’ বইটি। মেলার ৪৫৫ নম্বর স্টল ‘নয়া উদ্যোগ’ ও ১৫৩ নম্বর স্টক ‘উবুদশ’-এ। লেখক নির্মল সরকার জানান, “বীর বিপ্লবী মাস্টারদা সূর্য সেনের ছাত্র জীবনের এমন কিছু বিষয় আজকালকার বিভিন্ন বই ও পত্রপত্রিকায় পরিবেশিত হয়, যার কোন ভিত্তি নেই। সে ক্ষেত্রে আজকের সময়ে মাস্টারদার প্রাসঙ্গিকতার কথা ভেবেই আবার ছাপানো হয়েছে বইটি। সূর্য সেন সম্পর্কে সঠিক তথ্য রয়েছে এই বইতে। যা বহু গবেষণার ফসল।”