Jiban Saha: জামিন পেলেন জীবনকৃষ্ণ সাহা । ছুঁড়েছিলেন মোবাইল

Jiban Sahaগ্রেফতারর হয়েছিলেন ২০২৩-এর ১৭ এপ্রিল। তার আগে সিবিআই Central Bureau of Investigation জেরার মুখে মোবাইল ফোন ছুঁড়েছিলেন পুকুরে। সেই তৃণমূল বিধায়ক জীবন কৃষ্ণ সাহা। গ্রেফতারের  ১৩ মাস পর,  জামিন পেলেন জীবনকৃষ্ণ Jiban Krishna Saha

মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট জামিন দিয়েছে নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হওয়া  বিধায়ক জীবনকৃষ্ণকে। এদিনই  দিল্লি থেকে জামিন পাওয়ার খবর পৌঁছয় কলকাতার প্রেসিডেন্সি জেলে। প্রেসিডেন্সি জেলের  ২৫ নম্বর সেলে বন্দি রয়েছেন  তিনি।

 

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় তদন্তে নেমে  জীবনকৃষ্ণকে ২০২৩ সালের ১৭ এপ্রিল গ্রেফতার করেছিল সিবিআই। জামিনের আবেদন নিয়ে তিনি প্রথমে কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হন। সেখানে জীবনের জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে যায়। তার পরেই জামিন চেয়ে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন রাজ্যের শাসকদলের বিধায়ক।

মঙ্গলবার জীবনকৃষ্ণের জামিন সংক্রান্ত মামলাটির শুনানি হয় সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এএস বোপান্না এবং বিচারপতি সঞ্জয় কুমারের এজলাসে। আদালত সূত্রে খবর,  জীবনকৃষ্ণের আইনজীবীরা দাবি করেন,  নিয়োগ মামলার চার্জশিটে নাম থাকা ২৩ জনের মধ্যে ৯ জন গ্রেফতার হয়েছিলেন। কিন্তু পরে তাঁদের মধ্যে তিন জন জামিন পেয়ে যান। এই মামলার অন্যতম অভিযুক্ত প্রসন্ন এবং মধ্যশিক্ষা পর্ষদের প্রাক্তন সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায় জামিন পেয়েছেন। যদিও শীর্ষ আদালতে জীবনকৃষ্ণের জামিনের বিরোধিতা করে সিবিআই জানায়, বিধায়ক পুকুরে ফোন ছুড়ে ফেলে দুর্নীতিতে যুক্ত থাকার তথ্যপ্রমাণ নষ্টের চেষ্টা করেছেন। বিধায়কের ফোনের চ্যাট ঘেঁটে এক চাকরিপ্রার্থীর তাঁর কথোপকথনের প্রমাণও পাওয়া গিয়েছে বলে আদালতে জানায় সিবিআই।

 

নিয়োগ মামলায় তদন্তে নেমে ২০২৩ সালের ১৪ এপ্রিল জীবনকৃষ্ণের  বড়ঞার  বাড়িতে হানা দেয়  সিবিআই। একই সঙ্গে জীবনকৃষ্ণকে জিজ্ঞাসাবাদও করে। অভিযোগ, সেই জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশির ফাঁকে তাঁর ব্যবহার করা দু’টি মোবাইল ফোন বাড়ির পিছনে একটি পুকুরের জলে ফেলে দেন জীবনকৃষ্ণ। সেই মোবাইল উদ্ধার করতে পুকুরের জল ছেঁচে ফেলার ব্যবস্থা করতে হয় সিবিআইকে। টানা জিজ্ঞাসাবাদ ও তল্লাশির পরে ১৭ এপ্রিল মাঝরাতে কলকাতা থেকে সিবিআইয়ের আরও একটি দল কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে কান্দির বাড়িতে গিয়ে জীবনকৃষ্ণকে গ্রেফতার করে। তার পর থেকেই বিচারাধীন বন্দি অবস্থায় ছিলেন জীবনকৃষ্ণ।