বাঘ কোথায় ? এতো বাঘরোল ! ভরতপুরে উদ্ধার মেছো বেড়াল। ফিরে এল বাঘের গল্প

রবীন্দ্রনাথ কৈবর্ত্ত, কান্দিঃ বাঘ নয়। বাঘের মাসি ? নিদেনপক্ষে বাঘের পিসি ? সাত সকালে বাঘ খোঁজার উন্মাদনা শেষ হল বাঘরোল উদ্ধারে। স্থানীয় এক বাসিন্দা শ্রীমন্ত ঘোষের দাবি, দেখতে চিতা বাঘের মতো। কেউ কেউ বলছিল চিতাবাঘ। তাড়া খেয়ে চাষের জমিতে চলে যায় ওই প্রাণী। বনদপ্তর খবর দেওয়ার পর উদ্ধার হয় প্রাণীটি। রবিবার সাত সকালে ভরতপুরে উদ্ধার ফিশিং ক্যাট, স্থানীয়দের কাছে বাঘরোল বলেই পরিচিত এই বিলুপ্তপ্রায় প্রাণীটি । বিলুপ্তপ্রায় এই প্রাণী ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। বন দপ্তরের কর্মীরা খাঁচা পেতে উদ্ধার করে বাঘরোলটিকে। জানা গিয়েছে রবিবার সকালে ভরতপুর থানার হামিদপুর গ্রামের পাশে ঝোঁপের মধ্যে বাঘরোল দেখতে পান। স্থানীয়দের তাঁরা খেয়ে বাঘরোলটি একটি গ্রাছের উপরেও উঠে পড়ে । এতেই উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। বহু মানুষ ভিড় জমান এই বাঘরোল দেখতে। খবর দেওয়া হয় বন দপ্তরে। ঘটনাস্থলে পৌছায় বন দপ্তরের কর্মীরা। বেশ কিছুক্ষণের চেষ্টায় খাতা পেতে উদ্ধার করা হয় বাঘরোল টিকে। উদ্ধার হওয়া বাঘরোলটিকে বন দপ্তরের অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়।
যদিও বাঘরোল উদ্ধারে ফিরেছে এলাকায় বাঘের গল্প। স্থানীয় বাসিন্দা চন্ডীচরণ ঘোষের দাবি, প্রায় ৭০ বছর আগে এলাকায় বাঘ দেখা গিয়েছিল । চাষের জমিতে শুয়ে ছিল সেই বাঘ বাবাজি। যদিও মেছো বেড়াল উদ্ধারের সাথে সেই বাঘের গল্পের কোন যোগ নেই বলেই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।