কোথাও তৃণমূল-বিজেপি কোথাও বিজেপি-কংগ্রেস ,শুক্রবার রংবাহারি পঞ্চায়েত মুর্শিদাবাদে

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ কোথাও কংগ্রেসের হাত ধরল বিজেপি, কোথাও কংগ্রেসের পঞ্চায়েত দখল রুখতে তৃণমূলের সাথে পঞ্চায়েত ভাগ করে নিল বিজেপি। শুক্রবার  এরকম হরেক ঘটনার সাক্ষী থাকলেন মুর্শিদাবাদের মানুষ। এদিন বেলডাঙ্গায় জোট গড়ে পঞ্চায়েত দখল বিজেপি ও কংগ্রেসের। বেলডাঙার চৈতন্যপুর ২ পঞ্চায়েত বিজেপি ও কংগ্রেস জোটের   প্রধান হলেন বিজেপির প্রবীর  হালদার  এবং উপপ্রধান হলেন কংগ্রেসের আলপনা  মন্ডল । বেলডাঙার চৈতন্যপুর ২ পঞ্চায়েতে ১৪টি আসনের মধ্যে ৬টিতে জয়ী হয় বিজেপি, ৫টিতে জয়ি হয় তৃণমূল কংগ্রেস। বাকি ৩টি আসনে জয়ী  হয় কংগ্রেস । নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না  কোন দল না পাওয়ায়  এই পঞ্চায়েত ছিল ত্রিশঙ্কু। কয়েক দিন আগে দুই তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য যোগ দেন বিজেপিতে । বিজেপির সদস্য সংখ্যা দাঁড়ায়  ৮ । এদিন বোর্ড গঠনের সময় কংগ্রেস বিজেপিকে সমর্থন করে।  এদিন প্রধান হন বিজেপির প্রবীর  হালদার এবং উপপ্রধান হন কংগ্রসের আলপনা মন্ডল ।  জেতার পর একসাথে মিছিলও করেন কংগ্রেস ও বিজেপির কর্মীরা।

 

আবার  জলঙ্গিতে বাম কংগ্রেসকে রুখতে   একসাথে বোর্ড গড়ল তৃণমূল ও বিজেপি ।  বিজেপি এবং  তৃণমূল জোট করে দখল করল  দেবিপুর গ্রাম  পঞ্চায়েত । এই পঞ্চায়েতে মোট আসন ২৩।  ৫ টি আসন পেয়েছিল তৃণমূল , বিজেপি পায় ৮ টি আসন। ৩ টি আসন পায় কংগ্রেস, ৭ টি আসন পায় সিপিএম। কিন্তু বোর্ড গড়ল তৃণমূল ও বিজেপি।  প্রধান হয়েছেন তৃণমূলের আফরিনা বিবি ,মল্লিকা শীল বিজেপি থেকে উপপ্রধান হয়েছেন ।বোর্ড গঠনে অস্বস্তিতে পদ্ম শিবির।

মুর্শিদাবাদের লালগোলাতে আবার তৃণমূলের বিরুদ্ধে বাম, কংগ্রেস, বিজেপির সদস্যরা ঐক্যবদ্ধ হলেন।  ২৪ আসনের বাহাদুরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে তৃণমূল জিতেছিল ৯টিতে, বিজেপি জয়ী হয় ৭টিতে। কংগ্রেস ৫টি আসনে জয়ী হয়, সিপিআই(এম) দুটি আসনে এবং নির্দল একটি আসন পায়। এদিন বোর্ড গঠনে সিপিএমের একজন সদস্য অনুস্পস্থিত থাকেন। তৃণমূলকে সরাতে  কংগ্রেস বিজেপি ও সিপিএমের একজন সদস্য জোট বাঁধেঞ । প্রধান হন কংগ্রেসের বেবি হালদার এবং উপ্প্রধান হন জ্যোৎস্না মন্ডল।

 

সুতির হারুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতেও তৃণমূলকে হারাতে জোট বাঁধে  বাম কংগ্রেস বিজেপি  । প্রধান হলেন কংগ্রেসের রাখি রবিদাস ও উপপ্রধান বিজেপির জবা রানী মন্ডল।  হারুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের ২৬ টি আসনের মধ্যে তৃণমূল পায় ১২ টি আসন, কংগ্রেস  ৮ আসন, বামেরা পায় ৪ টি ও বিজেপি ২টি আসন।  তৃণমূলকে পরাজিত করতে এদিন বাম কংগ্রেস ও বিজেপি এক সাথে জোট বদ্ধ হয়। ১৪ জনের সমর্থনে প্রধান হন কংগ্রেসের  রাখি রবিদাস ও উপপ্রধান বিজেপির জবা রানী মন্ডল। সুতির সাদিকপুর পঞ্চায়েতও   বাম কংগ্রেস বিজেপি জোটের দখলে গিয়েছে এদিন । প্রধান হলেন আরএসপির আর উপপ্রধান হল বিজেপির।  ২৭ আসনের সাদিকপুরে তৃণমূল জয়ী হয় ১০টি আসনে, বিজেপি ৮টি আসনে জয়ী হয়। কংগ্রেস ৬টিতে এবং সিপিআই(এম) ২টিতে এবং আরএসপি জয়ী হয় ১টি আসনে। এর মধ্যে কয়েক দিন আগে কংগ্রেসের একজন তৃণমূলে যোগদান করে। এদিন বোর্ড গঠনে তৃণমূলকে হারাতে জোট বাঁধে বাম কংগ্রেস ও  বিজেপি।   প্রধান হন  আরএসপির রেশমা খাতুন এবং উপপ্রধান হয় বিজেপির আশিষ দাস ।

গ্রাম পঞ্চায়েতে পঞ্চায়েতে রাজনীতির এই রংবাহারি বিন্যাস দেখে তাজ্জাব জেলার মানুষও।