‘আরবি দিবস’ পালন হল মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ে। সাথে দাবি উঠল স্থায়ী পরিকাঠামোরও

নিজস্ব সংবাদদাতা, বহরমপুরঃ ‘আজ কত তারিখ?’ বা ‘আপনাকে আদালতে দেখে নেব’, কিংবা ধরুন ‘এই দোকানে নগদে মাল বিক্রি হয়, বাকি হয়না’ – কী এই বাক্যগুলো শুনতে তো বাংলায় মনে হচ্ছে। কিন্তু এই তারিখ, আদালত, দোকান, নগদ এই শব্দগুলির উৎস কী জানেন? আরবি। অবাক হলেও এটাই সত্যি। বাংলা ভাষার সাথে আরবির সুপ্রাচীন। এসবই উঠে এল আরবি ভাষা দিবসের অনুষ্ঠানে।

২০২১ সালে মুর্শিদাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্মলগ্ন থেকেই রয়েছে আরবি বিভাগ। বর্তমানে ১০০ অধিক পড়ুয়া রয়েছে এই বিভাগে। তাঁদের সকলকে নিয়ে ও অন্যান্য কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও অধ্যক্ষদের নিয়ে পালিত হল এই দিনটি। গানে, কবিতায়, দেওয়াল পত্রিকা প্রকাশের মাধ্যমে সমারোহে পালিত হল দিনটি।

জেলার একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আরবি বিভাগে বিষয়ে উচ্চশিক্ষা দেওয়া হয়। সেখানে আরবি বিভাগের পড়ুয়া সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। কিন্তু নেই একজনও স্থায়ী অধ্যাপক। বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নয়জন ফ্যাকাল্টি এসে পড়ান সেখানে। আরবি দিবসের অনুষ্ঠানে এই ভাষার স্থায়ী অধ্যাপকের দাবি জানালেন তাঁরাও।

১৯৭৩ সালের ১৮ই ডিসেম্বর রাষ্ট্রপুঞ্জ আরবি ভাষাকে অফিস ও দপ্তরের ভাষা হিসাবে স্বীকৃতি দেয়। এই বছর আরবি ভাষার রাষ্ট্রপুঞ্জ স্বীকৃতির ৫০ তম বছরে বিশ্ব আরবি ভাষা দিবস পালিত হল। গত তিন বছর ধরে এই দিনটি পালিত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। কিন্তু এবারে ১৮ই ডিসেম্বরের দু’দিন বাদে ২০ তারিখ ক্যাম্পাসে পালিত হল দিনটি। পড়ুয়ারা জানান, যদি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থায়ী শিক্ষক থাকত তাহলে দু’দিন দেরি হত না। আরবি ভাষা দিবসের দিনেই পালন করা যেত অনুষ্ঠানটি।