মুখ্যমন্ত্রীর জেলা সফরের আগে রদবদল তৃণমূলের দুই শাখা সংগঠনে

নিজস্ব সংবাদদাতা, বহরমপুরঃ তৃণমূলের বহরমপুর-মুর্শিদাবাদ সংগঠনে গুরুত্ব বাড়ল প্রবীণ নেতা সুবোধ দাসের। সোমবার তৃণমূলের রাজ্য সহ সমস্ত জেলার শ্রমিক সংগঠনের নয়া পদাধিকারিদের তালিকা প্রকাশিত হয়। সেই তালিকা অনুযায়ী মুর্শিদাবাদ জেলায় শ্রমিক সংগঠনের মুর্শিদাবাদ জেলায় নতুন সভাপতি হলেন সুবোধ দাস। জেলায় তৃণমূলের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে দলের সঙ্গে থাকলেও সম্প্রতি বেশ কয়েকবছর ধরে সংগঠনের কোনও গুরুত্বপূর্ণ পদে তিনি ছিলেন না। এদিন তাঁকে শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি করায় তিনি দলনেত্রীকে ধন্যবাদ জানান। এর আগে জেলায় ওই পদে ছিলেন পার্থপ্রতিম সরকার।

তিনি সম্পর্কে দলের জেলা সভাপতি অপূর্ব সরকারের ভাই। সম্প্রতি শাখা সংগঠন হিসেবে দলীয় কর্মসূচিতে পিছিয়ে পড়ছিল শ্রমিক সংগঠন সহ আরও কিছু সংগঠন। সেকথা দলের জেলা বৈঠকে বারবার উঠে আসছিল। ফলে পদ থেকে পার্থপ্রতিম ওরফে বাপিকে সরিয়ে পোড়খাওয়া সুবোধ দাসকে দায়িত্ব দেওয়া হল বলে মনে করছেন দলেরই একাংশ।

বহরমপুরের শ্রমিক সংগঠনের রদবদল হলেও জঙ্গিপুর সাংগঠনিক জেলায় অবশ্য কোনও রদবদল হয়নি। ২০২১ সাল থেকে শ্রমিক সংগঠনের সভাপতির পদে থাকা বিধায়ক আমিরুল ইসলামকেই ওই পদে রাখা হয়েছে। ফের সংগঠনের দায়িত্ব পাওয়ায় আমিরুলও দলনেত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

এদিন জেলার সংখ্যালঘু সেলেরও নয়া সভাপতিদের নাম ঘোষণা করেছে তৃণমূল। মুর্শিদাবাদের সংখ্যালঘু সেলের সভাপতি ছিলেন নাজিমুদ্দিন মণ্ডল। এদিন তাঁকে সরিয়ে দুই জেলা সংগঠনের দুই নেতাকে সভাপতি হিসেবে বেছে নিয়েছেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব। বছরখানেক ধরে অঘোষিতভাবে বহরমপুর-মুর্শিদাবাদ সংগঠনের দায়িত্ব সামলাচ্ছিলেন বহরমপুর পুরসভার ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের   কাউন্সিলর আবুল কাওসার। সোমবার সভাপতি হিসেবে তাঁর নামেই শীলমোহর দিয়েছে তৃণমূল ভবন। কাওসার বলেন, “রাজ্যের মৌখিক নির্দেশেই কাজ করছিলাম। এদিন আমার নাম ঘোষণা হওয়ায় ভাল লাগছে।” একইভাবে জঙ্গিপুরেও তৃণমূলের সংখ্যালঘু সেলের সভাপতির নাম ঘোষণা হয়েছে। এদিন সভাপতি হিসেবে মহম্মদ হাবিবুল্লাহর নাম ঘোষণা করেছে তৃণমূল।