সারের কালো বাজারি করার অপরাধে নওদায় সাসপেন্ড এক ব্যবসায়ী।

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওদাঃ নিয়ম না মেনেই চলছিল সার বিক্রি। সেই অভিযোগে এক সার বিক্রেতার লাইসেন্স বাতিল করল জেলা কৃষি দপ্তর। অভিযোগ সারের প্যাকেটের ওপর যে দাম রয়েছে তার থেকে বেশিদামে বিক্রি করছিলেন। এছাড়াও সার বিক্রি করার জন্যে রয়েছে কিছু নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন জানালেন মহকুমা সহ কৃষি অধিকর্তা (প্রসাশন) আনিকুল ইসলাম, “প্রথমত যারা এই লাইসেন্সের জন্যে আবেদন করবেন তাঁদের অবশ্যয় কেমিস্ট্রি নিয়ে গ্র্যাজুয়েট হতে হবে। যদি না হয় তাহলে তাঁদের একটি ডিপ্লোমা কোর্স করতে হবে। তাঁর পরে আবেদন করা এবং শেষমেশ আমরা পরিদর্শন করব তারপর পাওয়া যাবে লাইসেন্স। এছাড়াও যেহেতু সার, কীটনাশক এই সমস্ত খুবই ক্ষতিকারক যেহেতু এতে রাসায়নিক দ্রব্য থাকে। তাই এই সমস্ত গুদাম ঘরের পাশে কোন রকম খাবারের দোকানও করা যাবে না।”

মহকুমা সহ কৃষি অধিকর্তা (প্রসাশন) আনিকুল ইসলাম জানান, “ফার্টিলাইজার কন্ট্রোল অর্ডার ১৯৮৫ অনুযায়ী একাধিক বেনিয়মের অভিযোগে অনির্দিষ্ট সময়ের জন্যে ওই সার ব্যবসায়ীর লাইসেন্স বাতিল করার সিধান্ত নেওয়া হয়।”

স্থানীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে, সার বিক্রেতার নাম অসিত মণ্ডল। দীর্ঘদিন ধরেই তিনি এই সার ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলেন। এবং পাশাপাশি উনি একটি মুদিখানার দোকানও চালাতেন। যা নিয়মের একদম বিপরীত কাজ। যদিও এই সার বিক্রেতা এই প্রসঙ্গে কোনও মন্তব্য করতে চাননি। এছাড়াও জেলায় পর্যাপ্ত সার রয়েছে বলে জানান মহকুমা সহ কৃষি অধিকর্তা (প্রসাশন) আনিকুল ইসলাম। এছাড়াও জেলা এবং মহকুমা স্তরে টাস্ক ফোর্স তৈরি হয়েছে। আধিকারিকদের নিয়ে তৈরি এই টাস্ক ফোর্স।