বেলডাঙায় হেফাজতে থাকা দুষ্কৃতিকে জিজ্ঞাসাবাদে উদ্ধার বোমা-বন্দুক।

মধ্যবঙ্গ ওয়েব ডেস্কঃ ২৯শে অক্টোবর বেলডাঙাতে ঠাকুরপাড়া থেকে এক ব্যাক্তিকে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র সহ বেলডাঙ্গা থানার পুলিশ গ্রেফতার করেছিল। ধৃত মনিরুল হকের থেকে উদ্ধার হয়েছিল একটি ৯ মিলিমিটার পিস্তল ও ২ রাউন্ড গুলি। পুলিশ সূত্রে খবর, পূর্বেও একটি খুনের আসামী ছিলেন এই মনিরুল। সাথে বিভিন্ন অসামাজিক কাজে জড়িত ছিলেন এই ধৃত ব্যক্তি। ২৯শে অক্টোবর ৫ দিনের জন্যে পুলিশি রিমান্ডে নিয়েছিল ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল মনিরুলকে।

এবং দীর্ঘ পাঁচদিনের জেরার পর আরও তথ্য পুলিশের হাতে আসে। বেলডাঙায় পুলিশ হেফাজতে থাকা দুষ্কৃতিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও বোমা ও বন্দুক উদ্ধার করল পুলিশ। মঙ্গলবার ধৃতকে সাথে নিয়ে মির্জাপুরে অভিযান চালায় পুলিশ। তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার হয় বিপুল পরিমান তাজা বোমা ও একটি পাইনগান। মঙ্গলবার সকালে ধৃতকে নিয়ে মির্জাপুরের দক্ষিণ মাঠ পাড়া এলাকায় অভিযান চালায় পুলিশ। সেখানে ঝোপের মধ্যে থেকে উদ্ধার হয় ২ ড্রাম তাজা বোমা।

পাশেই একটি পাটকাঠির গাঁদা থেকে উদ্ধার হয় একটি পাইনগানও। উদ্ধার হওয়া বোমা নিষ্ক্রিয় করতে খবর দেওয়া হয়েছে বম্ব স্কোয়ার্ডে। এলাকায় বোমা ও বন্দুক উদ্ধার হওয়ায় আতঙ্কিত স্থানীয়রা। আরও কোথায় বোমা বা বন্দুক আছে কিনা তা ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানার চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ। বেলডাঙার এসডিপিও সন্দীপ গড়াই জানান, ‘প্রথমে ধৃতের ওপর আর্মস অ্যাক্টে কেস চালু করা হয়েছিল। পরবর্তীকালে জেরার পর ধীরেধীরে খুলতে থাকে বাকি রহস্য। তারপর তাকে নিয়ে যখন জায়গাতে নিয়ে যাওয়া হয় সেখান থেকে বেরিয়ে আসে ২৫টি বোমা এবং একটি পাইপ গানও।’ পরবর্তীতে আরও বড় ধরনের কেস দেওয়া হবে ধৃতকে। এবং পুলিশ সুনিশ্চিত করছে এই রকম আর কোথাও যেন লুকিয়ে কিছু না থাকে।