শীতের শুরুতেই নতুন পর্যটন কেন্দ্র রেজিনগরে । ভাগীরথীর দ্বীপে বন ও বন্যপ্রানী সংরক্ষণ

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ  সোমবার বিকেলে ভাগীরথীর ধারে একটি সরকারী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে নদীর বুকে   মাঙ্গনপাড়ার  দ্বীপকে সংরক্ষিত এলাকা হিসাবে ঘোষণা করা হল। বেলডাঙা ২ নম্বর ব্লকের রামপাড়া ১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় রয়েছে মাঙ্গনপাড়া চর । এবার সেই চরের প্রাকৃতিক দ্বীপে বন ও বন্যপ্রানী সংরক্ষনে বিশেষ উদ্যোগ নিল স্থানীয় প্রশাসন । এই মাঙ্গনপাড়া চর এলাকায় বায়ো ডাইভার্সিটি পার্ক বা জীব বৈচিত্র্য উদ‍্যান তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হল।

সোমবার বিকেলের এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সদর মহকুমা শাসক প্রভাত চ্যাটার্জী, জেলা পঞ্চায়েত এবং গ্রামন্নোয়ন আধিকারিক রাজর্ষি নাথ, খৈতানের জেনারেল ম্যানেজার জীতেন্দ্র নাথ সাকসেনা, বেলডাঙা ২ ব্লকের বিডিও অংশুমান দত্ত সহ প্রশাসনিক আধিকারিকেরা।

ভারীরথীর দুই পাড়ে ১১টি গ্রাম পঞ্চায়েত নিয়ে গড়ে উঠেছে বেলডাঙা ২ নম্বর ব্লক। সেই ব্লকের মধ্যে মহম্মদপুর মৌজায় ভাগীরথীর বুক চিড়ে তৈরি হয়েছে আস্ত একটা দ্বীপ। এক পাড়ে মহম্মদপুর অন্যদিকে চর মহম্মদপুর। এর মাঝে রয়েছে মাঙ্গনপাড়া চর। সেখানে রয়েছে পশু, পাখি। বনের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন জীবের বৈচিত্রের সমাহার। এই জায়গাটিকে রক্ষা করে, পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে  ব্লক প্রশাসন, পঞ্চায়েত সমিতি ও গ্রাম পঞ্চায়েত। খৈতান কোম্পানির এই জমিতে বায়ো ডাইভার্সিটি পার্ক হবে। মাঙ্গনপাড়া চরে এই পার্ক তৈরির কাজে সব রকম সহায়তা করবে খৈতান কোম্পানি, এমনটাই জানান কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার জিতেন্দ্রে নাথ সাক্সেনা।

ভারীরথীর উপর গড়ে ওঠা এই দ্বীপের জীব বৈচিত্রকে গুরুত্ব দিয়ে বেলডাঙা পঞ্চায়েত সমিতি ও রামপাড়া ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের ব্যবস্থাপনায় এখানে গড়ে তোলা হবে ইকো ট্যুরিজম। এই জায়গাকে মানুষের কাছে আরও আকর্ষনীও করে তুলতে নেওয়া হবে নানান ব্যবসায়ী উদ্যোগ।