মাছের বাজার থেকে পড়ার বই, নারী দিবসে পায়েলের লড়াইয়ের রোজনামচা

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ  সকালে মাছের আঁশ ছাড়িয়ে বেলা বাড়তেই পড়ার বইতে মুখ গোঁজা। বাবার সাথেই মাছের দোকানে বসে সংসারের হাল টানছেন রঘুনাথগঞ্জের পায়েল হালদার।

রঘুনাথগঞ্জের ব্লকের কানুপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সোনাটিকুরি গ্রামের বাসিন্দা একাদশ শ্রেণির ছাত্রী পায়েল। বাড়িতে অসুস্থ মা। বাবা হরেকৃষ্ণ হালদারের কষ্ট কমাতেই বাবার সাথেই মাছের ব্যবসায় নেমেছেন পায়েল। পাঁচ বছর ধরে প্রতিদিনের রুটিন শুরু হয় ভোরে বাজারে। সকাল থেকে বেলা গড়ানো পর্যন্ত রঘুনাথগঞ্জে তুলসিবিহারী বাজারে মাছ বিক্রি করেন পায়েল। আর বেলা বাড়তে বাড়ি ফিরে শুরু পড়াশোনা।

পায়েল বলছেন, বাবার পাশে থাকতে চাই। তাই প্রতিদিন কাজ করছি বাড়ির জন্য। পড়াশোনায় সমস্যা হচ্ছে। কিন্তু যেটুকু হচ্ছে, সেটুকু পড়াশোনা করেই চালাতে হচ্ছে। কিন্তু রোজগারতো করতেই হবে। পায়েল চান, মেয়েরা এভাবেই সব রকম কাজে এগিয়ে আসুক। সব প্রতিকুলতার সাথে লড়াই করেই কাটুক জীবন।

পায়েলের প্রতিদিনের সংগ্রামকে আমরাও জানাই কুর্নিশ।