বিধায়কের বিরুদ্ধে ফের ক্ষোভ বড়ঞায় ! বিজয়ায় কাটছে সুর ?

রবীন্দ্রনাথ কৈবর্ত্তঃ ১৩ অক্টোবরঃ  বিজয়া সম্মিলনীকে সামনে রেখে দলে ঐক্য ফেরানোর ডাক দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু বিজয়া ঘিরেই ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের কোন্দল। এবার মুর্শিদাবাদের বড়ঞায় ফের বিধায়কের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন প্রাক্তন ব্লক সভাপতি, প্রাক্তন যুব সভাপতি।

বৃহস্পতিবার  পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির ডাকে  বিজয়া সম্মিলনী হয় । ব্যানারে ছিল মমতা বন্দোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের ছবি। সেই সভা  থেকে বিধায়ক, ব্লক তৃণমূল সভাপতি ও যুব সভাপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন দলেরই একাংশ । তাদের নিশানায় ছিল ব্লক তৃণমূল সভাপতি রবিন ঘোষ, বিধায়ক জীবন কৃষ্ণ সাহা ও ব্লক যুব সভাপতি সামশেরজামান।

বৃহস্পতিবার এই বিজয়া সম্মিলনীতে দেখা যায় প্রাক্তন ব্লক তৃণমূল সভাপতি গোলাম মুর্শেদ ওরফে জর্জ, প্রাক্তন ব্লক যুব সভাপতি মাহে আলমকে । সভায় ৭টি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান , মেম্বার ও পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদেরও দেখা যায়। এই সভা থেকেই দলের ব্লক সভাপতি ও বিধায়কের বিরুদ্ধে সুর চড়ান প্রাক্তন ব্লক ও যুব তৃণমূল সভাপতি।

বড়ঞার  পঞ্চায়েত সমিতির পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ প্রাক্তন যুব তৃণমূল সভাপতি   মাহে আলমের হুঁশিয়ারি, গণতান্ত্রিক ভাবে বিধায়ককে জবাব দেবেন মানুষ।  প্রাক্তন ব্লক তৃণমূল সভাপতি গোলাম মুর্শেদ ওরফে জর্জের অভিযোগ, এদিনের সভায় না আসার জন্য পুলিশ দিয়ে ভয় দেখানো হয়েছে, তাও জনপ্রতিনিধিরা এসেছেন। আগামী দিনে আন্দোলন হবে বলেও হুমকি দেন তিনি।

গোটা ঘটনায় তীব্র অস্বস্তিতে তৃণমূল কংগ্রেস  শিবির। বড়ঞায় কী  তৃণমূলের বিভাজন আসন্ন? এই  প্রশ্নই  এখন ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনৈতিক মহলে। যদিও বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মীরা আভাস দিলেও এখনো আড়ালেই রাখছেন রাজনৈতিক পালাবদলের বিষয় । পাল্টা বিক্ষুব্ধদের প্রতি কোন মন্তব্য না করে দলের এগিয়ে চলাকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন ব্লক তৃণমূল সভাপতি। বড়ঞা ব্লক তৃণমূল সভাপতি রবিন ঘোষ বলেন,” আমি নিজে থেকে নেতা হই নি। অভিষেক বন্দোপাধ্যায়, মমতা বন্দোপাধ্যায়  দায়িত্ব দিয়েছে । আমরা কী করেছি, না করেছি, তারাই সব থেকে ভালো বুঝে দায়িত্ব দিয়েছে । পিছনের দিকে তাকানোর সময় নেই “।