পঞ্চায়েতে গণতন্ত্র প্রমাণ  ? চ্যালেঞ্জ কোন্দল; বিজয়ায়  ঘর গোছানোর ডাক শাওনীর

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ “ প্রত্যেকটা পঞ্চায়েতে মমতা ব্যানার্জির প্রধান। প্রতিষ্ঠা করতে হবে গণতন্ত্র। এখন থেকেই গোছাতে হবে ঘর”,  মঙ্গলবার তৃণমূলের বিজয়ায় আহ্বান জানালেন তৃণমূলের বহরমপুর মুর্শিদাবাদ সাংগঠনিক জেলার সভানেত্রী শাওনী সিংহ রায়।

২০১৮ সালের পঞ্চায়েত নির্বাচনে অশান্তির অভিযোগ উঠেছিল মুর্শিদাবাদেও। মনোনয়ন জমার পর্বে ব্লকে ব্লকে হয়েছিল অশান্তিও । বিরোধীরা দাবি করেছিলেন, মনোনয়ন জমা দিতে দেওয়া হয় নি।

সেদিনের বিরোধী শিবিরে থাকা অনেকেই এখন তৃণমূল কংগ্রেসের মাথায়। বিগত পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগেই কংগ্রেসের সম্পর্ক ছাড়েন বিধায়িকা শাওনি সিংহ রায়। তিনিই এখন তৃণমূলের জেলা সভাপতি। পঞ্চায়েত পর্বে কংগ্রেসেই ছিলেন আবু তাহের খান। তিনিই এখন দলের মুর্শিদাবাদ , বহরমপুর সাংগঠনিক জেলার চেয়ারম্যান। পঞ্চায়েতের আগে তাই দল সামলানো, গণতন্ত্র প্রমাণ করা  দুই নেতার কাছেই চ্যালেঞ্জের বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল।

সম্প্রতি জেলায় ব্লক সভাপতি পাল্টানোয় বেশকিছু এলাকায় চওড়া হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের আভ্যন্তরীন ফাটল। বিধায়ক বনাম ব্লক সভাপতি তরজায় উত্তপ্ত হয়েছে ভরতপুর থেকে নওদা।

এই পরিস্থিতিতেই ব্লকে ব্লকে দলের বিজয়া সম্মিলনীর ডাক দিয়েছে তৃণমূল। বিজয়া সম্মিলনীতে ফাটল জোড়া লাগে নাকি আরো চওড়া হয় সেই দিকেই তাকিয়ে রানৈতিক মহল। তবে পঞ্চায়েতে ঘর গোছানোর জন্য বিজয়াকেই ব্যবহার করতে চাইছে তৃণমূল।

মঙ্গলবারের সভায় ছিলেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের জলসম্পদ উন্নয়ন এবং পরিবেশ দপ্তরের মন্ত্রী  মানস ভুঁইয়া। যদিও ছিলেন না সাংসদ আবু তাহের খান, বিতর্কিত বিধায়ক হুমায়ুন কবির। মানস ভুঁইয়া জানান, চিকিৎসার জন্য দিল্লিতে আছেন আবু তাহের খান। বিধানসভার স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকে গিয়েছেন হুমায়ুন কবির।