নিমতিতা বিস্ফোরণ, খুনের ছকের মাস্টারমাইন্ড অধরাই ! NIA চার্জশীটে আক্ষেপ জাকিরের

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্কঃ  নিমতিতা বিস্ফোরণ কান্ডে এবার  সাপ্লিমেন্টারি চার্জশীট দিল এনআইএ NIA । ১৭ ফেব্রুয়ারি মুর্শিদাবাদে   নিমতিতা স্টেশনে বিস্ফোরণ হয়। সেই সময় ট্রেন ধরতে স্টেশনে ছিলেন শ্রম দপ্তরের তৎকালীন মন্ত্রী জাকির হোসেন। সেদিন  ওই বিস্ফোরণে মোট ২৭ জন আহত হন । কোনমতে প্রাণে বাঁচেন জাকির হোসেন। তবে গুরুতর ভাবে আহত হন তিনি। এখনও চলছে চিকিৎসা।

জাকির হোসেনকে খুনের উদ্দেশ্যেই হামলা করা হয়েছিল। এমনই দাবী করা হয়েছে  চার্জশীটে। প্রাথমিকভাবে এই বিস্ফোরণের তদন্ত শুরু করেছিল সিআইডি। আব্দুল সামাদ এবং শহিদুল ইসলাম নামের দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছিল সিআইডি।

পরে এই ঘটনার তদন্ত শুরু করে এনআইএ। ২৪ আগস্ট প্রথম চার্জশীট দেয় এনআইএ।  এনআইএ-র সেই  চার্জশিটে নাম ছিল  আব্দুল সামাদ এবং শহিদুল ইসলামের। এই বছর জুন মাসে  নিমতিতার বাসিন্দা ঈশা খান ওরফে ঈশা শেখকে গ্রেফতার করে এনআইএ। সাল্পিমেটারি চার্জশীটে নাম রয়েছে ঈশা খানের। সূত্রের খবর, বিস্ফোরক সরবরাহ করেছিল এই ঈশা খান।

এনআইএ’র তদন্তে যদিও সন্তুষ্ট নন প্রাক্তন মন্ত্রী, জঙ্গিপুরের বিধায়ক জাকির হোসেন। জাকির হোসেনের আক্ষেপ, এনআইএ এতবড়ো সংস্থা অথচ খুনের চক্রান্তের মাস্টারমাইন্ডকে গ্রেফতার করতে পারল না।

জাকির হোসেন বলেন, “ দোষীরা শাস্তি পাক। এনআইএ বড় সংস্থা তাকে সম্মান জানাই । ঈশা খানের মাথায় কে আছে তাদের যেন খুঁজে বের করা হয়”। জাকির হোসেনের দাবি, খুনের চক্রান্তের পিছনে কোন মাস্টার মাইন্ড আছে। তাকে খুঁজে বের করা হোক।

জাকির হোসেনের সুরে সুর মিলিয়েছেন বহরমপুরের কংগ্রেস সাংসদ, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি জাকির হোসেনও। অধীর চৌধুরী  বলেন, “ জাকির হোসেনকে মারার পিছনে তৃণমূল দলের অনেক বড় মাথা জড়িত আছে বলে আমরা বিশ্বাস করি। এনআইএ অনেক বড় বড় কথা বললেও কিছু করতে পারে নি”। হামলার সময় মন্ত্রী ছিলেন জাকির।  অধীরের কটাক্ষ সরকারের মন্ত্রীর জন্য সরকারের মাথাব্যাথা নেই কেন। অধীরের দাবি, জাকির হোসেন অনেকের বাড়া ভাতে ছাই দিয়েছিলেন, তাই তার উপর হামলা হয়েছে।