গোয়ালঘরে দুটো ষাঁড় মারামারি করছে আর আমাদের ঠ্যাং ভেঙে যাচ্ছেঃ মীনাক্ষী

মধ্যবঙ্গ নিউজ ডেস্ক, বহরমপুরঃ বহরমপুর ব্লকের কর্ণসূবর্ণে বৃহস্পতিবার   সমাবেশে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল ও বিজেপিকে একযোগে তীব্র আক্রমণ করেন মীনাক্ষী মুখার্জী। পঞ্চায়েত নির্বাচনে নিজের দলের পক্ষে ভোট টানতে এদিনের সভায় শাসক তৃণমূলকে স্বভাব সুলভ ভঙ্গীতে আক্রমণ করেন তিনি। পাশাপাশি আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকির পাশে দাঁড়ানোর বার্তাও দেন এই যুব নেত্রী। তৃণমূল ও বিজেপিকে এক বন্ধনীতে রেখে এদিন তিনি বলেন, “তৃণমূল-বিজেপির বিরোধী একমাত্র বিধায়ককে পুলিশ জেলে ভরে রেখে দিয়েছে। রাজ্য বাজেটে সেই বিধায়ক নেই। এতবড় অন্যায় করেছে যে তাকে জেল হেফাজতে দিতে হচ্ছে। আর যারা মাটি, বালি চুরি করছে তাদেরকে ধরতে দিল্লি থেকে লোক পাঠাতে হচ্ছে। আর আমাদের রাস্তায় বসে থাকতে হচ্ছে।” এদিন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আর শুভেন্দু অধিকারীর নাম করে দুই দলের দুই নেতাকে কটাক্ষ করেন মীনাক্ষী। তিনি বলেন, “গোয়ালঘরে দুটো ষাঁড় মারামারি করছে আর আমরা বাছুর, আমাদের ঠ্যাং ভেঙে যাচ্ছে।”

মদ থেকে আয় করতে সরকার মদের দোকান খুলছে। অথচ কর্মসংস্থানের চেষ্টা করছে না, দাবি করে ওই দুই দলের বিরুদ্ধে সুর চড়ান তিনি। রাজ্যের শাসক ও বিরোধী দলের সমালোচনা করে তিনি দাবি করেন, “যত পঞ্চায়েত নির্বাচন এগিয়ে আসবে তত পাড়ার দোকানে মোড়ের মাথায় ফ্রিতে মদ বিতরণ করা হবে। হাতে নিজেদের দলের ঝান্ডা ধরিয়ে দেওয়া হবে।” সময়ে অসময়ে বাম যুব কর্মীদেরই মানুষ ডাকলে পাশে পান বলেও এদিন দাবি করেন মীনাক্ষী। তাই শাসক দলের “ অন্যায়” এর বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে পরিস্থিতি বদলাতে বামেদের পক্ষে ভোট দেওয়ার জন্য সমাবেশে উপস্থিত সমর্থকদের কাছে আবেদন করেন তিনি। তিনি বলেন, “পঞ্চায়েত ভোটের আগে বুথে বুথে  কর্মী বাহিনী তৈরি করতে হবে এবং জনগনের পঞ্চায়েত গড়ে তুলতে হবে।” তবে বাম যুব নেত্রীর মন্তব্যের কোনও প্রতিক্রিয়া হয় না বলে পাল্টা দাবি করেন তৃণমূল যুব সংগঠনের মুর্শিদাবাদ জেলা সভাপতি রাকিবুল ইসলাম। তিনি বলেন, “ মীনাক্ষী দেবী তাঁর পূর্বসূরিদের সংস্কৃতির কথাই তিনি এলাকাবাসীকে জানিয়েছেন। আর তা রাজ্যের ইতিহাস ঘাঁটলেই দেখা যাবে। মানুষই তৃণমূল কংগ্রেসের গণদেবতা। এখানেই বামেদের হিংসা।”